জেটের পাইলটরা মায়ের গয়না বন্দক রাখতে বাধ্য হচ্ছেন

ডেস্ক রির্পোট  আজকের ডাক | প্রকাশিত: শুক্রবার, মার্চ ২২, ২০১৯ ২:৫১ অপরাহ্ণ  

আমরা যখন পাইলটের আসনে বসি তখন সমস্ত মানসিক যন্ত্রণা দূরে সরিয়ে রাখার চেষ্টা করি। কিন্তু দিনের শেষে আমরাও মানুষ। দূরে সরাতে চাইলেও যন্ত্রণার অনুভূতি দূরে যায় না। দেশের বেসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রী সুরেশ প্রভুকে লেখা চিঠিতে এ কথাই জানিয়েছেন তীব্র অর্থ সংকটে ভুগতে থাকা উড়ান সংস্থা জেট এয়ারওয়েজের পাইলট করণ চোপড়া।

বোয়িং ৭৭৭ বিমানে এ পেশায় দু’দশক ধরে আছেন করণ চোপড়া। গত চার মাসেরও বেশি সময় বেতন হয়নি তার। কয়েক দিনের মধ্যে জেটের আর্থিক পরিস্থিতি খুবই খারাপ হয়েছে। নতুন করে আরো বেশ কিছু বিমান বসিয়ে দেওয়া সিদ্ধান্ত নিয়েছে সংস্থা। দেশের অন্যতম জনপ্রিয় এই উড়ান সংস্থার আর্থিক সংকট কেন্দ্রীয় সরকারকে প্রবল চিন্তায় ফেলেছে। এমতাবস্থায় চিঠি লিখলেন পাইলট। জেটের কর্মী সংগঠনের এই নেতা লিখেছেন, ‘পাইলটদের মধ্যে যে মানসিক চাপ তৈরি হয়েছে তা যাত্রীদের নিরাপত্তার জন্য ভাল বিষয় নয়।’

মধ্যপ্রাচ্যের উড়ান সংস্থা ইথাডের কাছে জেটের সবচেয়ে বেশি অংশীদারিত্ব আছে। তাদের দিক থেকে আসা কোনও কিছুতে আর্থিক সংকট মিটবে কিনা তা স্পষ্ট নয়। আর তাছাড়া এই সংস্থাকে ঋণ দেওয়া ব্যাঙ্ক এসবিআই কোনও রফাসূত্র বের করতে পারবে কি না তাও নিশ্চিত নয়।

মায়ের গয়না বন্দক রাখতে বাধ্য হচ্ছেন জেটের পাইলটরা

একটি সূত্র বলছে, স্টেট ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার তরফে জেটের চেয়ারম্যান নরেশ গোয়েল তার স্ত্রী এবং আরও দুই কর্তাকে পদ ছেড়ে দিতে বলা হয়েছে। এসবিআইয়ের চেয়ারম্যান জানান গত পাঁচ মাস ধরে সমাধান সূত্র খোঁজার চেষ্টা হচ্ছে। পরিকল্পনা হয়ে গিয়েছে। কয়েকটি কারণে তা আটকে আছে।

চিঠিতে চোপড়া আরও লিখেছেন, বেতন না পাওয়ায় পাইলটদের পরিস্থিতি খুব খারাপ হয়ে গিয়েছে। বাড়ির কেউ অসুস্থ হলে তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া যাচ্ছে না। ছেলেমেয়েদের পড়াশুনো বন্ধ হয়ে যেতে বসেছে। কেউ কেউ নিজের মায়ের গয়না বন্দক রাখতে বাধ্য হচ্ছেন। আরেক প্রবীণ পাইলট বলেছেন জেট বন্ধ হয়ে গেলে ১৫০০ পাইলট কর্মহীন হয়ে পড়বেন। সবাই যে নতুন চাকরি পাবেন তার নিশ্চয়তা নেই। সূত্র: এনডিটিভি।

 

 

 

 

-এডি/ এএ

সর্বশেষ

জনপ্রিয় সংবাদ