উত্তাল বঙ্গোপসাগর উপকূলজুড়ে ‘ফণি’ আতঙ্ক নিরাপদে মাছ ধরা ট্রলার

রাসেল কবির মুরাদ, কলাপাড়া  আজকের ডাক | প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, মে ২, ২০১৯ ৪:০৫ অপরাহ্ণ  

সমুদ্র উপকূলীয় কলাপাড়ায় বৃহস্পতিবার,২রা মে সকাল থেকে গুমট পরিস্থিতি বিরাজ করছে। উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে বিভিন্ন ইউনিয়নে মাইকিং করে বেরি বাঁধের বাইরে থাকা লোক জনকে নিরাপাদে যেতে বলা হয়েছে। ঘুর্ণিঝড় “ফণি” আঘাত হানতে পারে এমন শঙ্কায় উপকূলের লাখ লাখ মানুষ।

বিরাজ করছে এক ধরনের উৎকন্ঠা। কুয়াকাটা সংলগ্ন বঙ্গোপসাগর উত্তাল রয়েছে। স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে বিভিন্ন নদ-নদীর পানি কিছুটা বৃদ্ধি পেয়েছে। এদিকে ঘুর্ণিঝড় ফণি’র প্রভাবে দমকা বাতাস বইছে, হাল্কা বৃষ্টিপাত হয়েছে। পায়রা বন্দরসহ তৎসংলগ্ন এলাকায় ৭ নম্বর বিপদ সংকেত দেখানোর জন্য নির্দেশনা দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। এর ফলে গভীর সমুদ্র থেকে মাছ ধরার ট্রলার গুলো নিরাপদে আসতে শুরু করেছে।

উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জনা গেছে, সম্ভাব্য ঘূর্ণিঝড় ‘ফনি’র ক্ষয়ক্ষতি মোকাবেলায় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারমানদের নিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জরুরী সভা করেছেন। সভায় ঘূর্ণিঝড়ের আঘাত হানার আগেই দুর্গত এলাকা থেকে যাতে মানুষজনদের সরিয়ে নেয়া হয় এজন্য সকল সাইক্লোন সেন্টার গুলো প্রস্তুত রাখার নির্দেশ দিয়েছেন।

খোলা হয়েছে কন্ট্রোলরুম। এছাড়া স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে মেডিকেল টিম প্রস্তুত রাখা হয়েছে। মজুদ করা হয়েছে শুকনো খাবার ও চাল। খাদ্য বিভাগ এবং ফায়ার সার্ভিসকে দুর্যোগ পরবর্তী যে কোন পরিস্থিতি মোকাবেলায় প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি গ্রহণের জন্য নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। উপজেলার সিপিপি ভলান্টিয়ারদের সজাগ দৃষ্টি রাখার জন্য নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

জেলেদের সাথে আলাপ করলে তারা জানান, দূর্যোগের খবর পেয়ে সাগরে অবস্থান রত সকল নৌকা ও মাছ ধরার ট্রলার মৎস্য বন্দর আলীপুর-মহিপুর আড়ৎ ঘাটসহ বিভিন্ন নদ-নদীতে আশ্রয় নিয়েছে।

কুয়াকাটা ও আলীপুর মৎস ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মো.আনসার উদ্দিন মোল্লা জানান, গভীর সমুদ্র থেকে সকল মাছ ধরা ট্রলার নিরাপদ আশ্রয়ে ফিরে এসেছে। বর্তমানে সাগর উত্তাল আছে।

কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. তানভির রহমান জানান, ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় সকল ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে।

 

 

 

 

 

-এডি/ এএ

সর্বশেষ

জনপ্রিয় সংবাদ

%d bloggers like this: