দিনাজপুরে আন্দোলনরত শ্রমিকদের ওপর পুলিশের লাঠিচার্জ, আটক ১০

 আজকের ডাক | প্রকাশিত: রবিবার, জুলাই ৭, ২০১৯ ৩:০০ অপরাহ্ণ  

দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রে অভিজ্ঞ শ্রমিক নিয়োগের দাবিতে রাজপথ অবরোধ চলাকালে শ্রমিকদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া এবং সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ আন্দোলনরত বিক্ষুব্ধ শ্রমিকদের উপর লাঠিচার্জ করেছে। এ সময় আন্দোলনরত ১০ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

রোববার দুপুরে পুলিশের লাঠিচার্জে অন্তত ২০ জন শ্রমিক আহত হওয়ার দাবি করেছে আন্দোলনকারীরা।

তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ২৭৫ মেগাওয়াট উৎপাদন ক্ষমতাসম্পন্ন তৃতীয় ইউনিটে ১৫৪ জন অভিজ্ঞ শ্রমিক নিয়োগের দাবিতে পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী শ্রমিকসহ স্থানীয় অধিবাসিরা রোববার সকাল থেকে দ্বিতীয় দিনের মতো অবরোধ শুরু করে। এতে ফুলবাড়ী-পার্বতীপুর সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এতে দুর্ভোগে পড়ে ওই সড়ক দিয়ে চলাচলকারীরা।

দুপুরে পুলিশ গিয়ে আন্দোলনরতদের অবরোধ থেকে সরে আসতে বললে পুলিশ ও শ্রমিকদের মধ্যে বাকবিতণ্ডা ঘটে। এক পর্যায়ে পুলিশের সঙ্গে তাদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পুলিশ লাঠিচার্জ করে তাদেরকে ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

এসময় শ্রমিক অধিকার আন্দোলন পরিচালনা কমিটির সভাপতি হাবিবুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক আবু সাইদসহ ১০ জন শ্রমিকদের আটক করে।

আটককৃত অনান্য শ্রমিকরা হলেন আরিফুল ইসলাম, মাজেদুল ইসলাম, মনোয়ার হোসেন, আব্দুল আজাদ, মমিনুল ইসলাম, মাজেদুল হক, জিয়াদুল হক ও শাহিনুর রহমান।

পুলিশের লাঠিচার্জ ও ধাওয়া- পাল্টা ধাওয়া ঘটনার পর আন্দোলরত শ্রমিকরা সংঘঠিত হয়ে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি বাজারে বিক্ষোভ মিছিল করে।

এ সময় আন্দোলন পরিচালনা কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কবি শাহাজান মানিক হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, আটককৃত নেতাকর্মীদের অবিলম্বে নিঃশর্ত মুক্তি ও বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রে অভিজ্ঞ শ্রমিকদের নিয়োগ না দেয়া হলে আরও কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।

এ সময় কমিটির সহ-সভাপতি রফিকুল ইসলাম, আরিফ, বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন ফুলবাড়ী শাখার সাধারণ সম্পাদক নুর আলমসহ অনান্য শ্রমিক নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

শ্রমিক অধিকার আন্দোলন কমিটির সহ-সভাপতি রফিকুল ইসলাম ও আরিফ বলেন, শ্রমিকরা তাদের ন্যায্যদাবি পূরনের লক্ষ্যে শান্তিপূর্ণভাবে কর্মসূচি পালন করে আসছিল, কিন্তু পুলিশ বিনা উসকানিতে হঠাৎ তাদের উপর লাঠিচার্জ শুরু করে। এতে তাদের অন্তত ২০ জন আহত হয়।

এ ব্যাপারে ফুলবাড়ী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আশিষ বিন হাসান জানান, অবরোধে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়েছিল। পাশাপাশি পাশের রেললাইনে লাল ঝান্ডা উড়িয়ে ট্রেন আটকানোর চেষ্টা করে তারা। এ সময় বুঝিয়ে তাদেরকে সরিয়ে দেয়ার চেষ্টা বিফল হলে পুলিশ বাধ্য হয়েই লাঠিচার্জ করে।

তিনি জানান, এ সময় অবরোধকারীদের সঙ্গে সংঘর্ষের সময় লাঠিচার্জ করে তাদেরকে ছত্রভঙ্গ করে দেয়া হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে বলে জানান তিনি। এই ঘটনার পর বড়পুকুরিয়া তাপ বিদুৎ কেন্দ্রে অতিরিক্ত পুলিশ ও অন্যান্য আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, চীনা ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান হারবিনের অধীনে বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের তৃতীয় ইউনিটের উন্নয়ন কাজের সময়ে ৩ বছরের অভিজ্ঞতা অর্জনকারী শ্রমিকদের উৎপাদন কর্মী হিসেবে নিয়োগের দাবিতে আন্দোলন চালাচ্ছেন তারা।

শনিবার সকাল থেকে ওই কেন্দ্রের সামনে সড়কে অবস্থানসহ অবরোধ কর্মসূচি শুরু করে আন্দোলনরত নিয়োগবঞ্চিত শ্রমিক ও তাদের পরিবারের সদস্যরা।

সর্বশেষ

জনপ্রিয় সংবাদ